fbpx
Ad imageAd image

হারের বৃত্তে বন্দি ঢাকা : সিলেটের প্রথম জয়

কিশোরগঞ্জ পোস্ট
কিশোরগঞ্জ পোস্ট

প্রথম ম্যাচ জয়ের পর জিততেই যেনো ভুলে গেছে দুর্দান্ত ঢাকা। আর টানা ৫ ম্যাচ হারের পর অবশেষে স্বস্তির জয় পেল সিলেট স্ট্রাইকার্স। এদিন আগে ব্যাট করে অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুনের অর্ধশতকে সিলেট স্কোরবোর্ডে তুলেছিল ৮ উইকেটে ১৪২ রান। সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে এই রানই মোসাদ্দেক হোসেনের দুর্দান্ত ঢাকার হারের জন্য যথেষ্ট হয়ে যায়। তারা ৯ উইকেট হারিয়ে করতে পারে মাত্র ১২৭ রান।

১৫ রানে জিতে পয়েন্ট তালিকায় সিলেটের বর্তমান অবস্থান ছয় নম্বরে,আর  ঢাকা তলানিতে। অবশ্য এই ম্যাচের আগে অধিনায়কত্বে পরিবর্তন আনে সিলেট। হুইপের দায়িত্ব নিতে বিপিএল থেকে বিরতি নেন  সিলেটের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। তাঁর জায়গায় অধিনায়কত্ব করেন মোহাম্মদ মিঠুন। তাঁর নেতৃত্বে প্রথম ম্যাচেই জিতল গতবারের ফাইনালিস্ট সিলেট।

ঢাকার সামনে আজ লক্ষ্য বেশী বড় ছিল না। তবে টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতার কারণে এই ১৪২ রানের লক্ষ্যকেই মনে হচ্ছিল পাহাড়সম। ইনিংসের কোনো পর্যায়ে মনে হয়নি ঢাকা ১৪২ রান তাড়া করতে পারবে। ব্যাটসম্যানদের যাওয়া–আসার মিছিলের শুরুটা সাইম আইয়ুব ও মোহাম্মদ নাঈমকে দিয়ে। দুজনেই আউট হন বিদেশি রিচার্ড এনগারাভার বলে।

- Advertisement -

ইনিংসের প্রথম বলে কাভারের ওপর দিয়ে চার মেরে ভালো শুরুর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন সাইম আইয়ুব। অ্যালেক্স রসের সঙ্গে তাঁর ২৮ বলে ৩১ রানের জুটি ঢাকাকে কিছু সময়ের জন্য ম্যাচে টিকিয়ে রেখেছিল। তবে ১৯ বলে ১৭ রান করে সাইফ রানআউট হওয়ার পরের ওভারেই রেজাউর রহমানের বলে ২০ রানে এলবিডব্লু হন রস।

মোসাদ্দেকদের ব্যর্থতায় ম্যাচের বাকি অংশ ছিল ছিল শুধুই আনুষ্ঠানিকতা রক্ষার। ম্যাচের শেষ দিকে তাসকিনের ১১ বলে ২৭ রানের ইনিংস সর্বোচ্চ রান শুধু হারের ব্যবধান টাই কমিয়েছে। এ নিয়ে টানা ৪ ম্যাচ হারল ঢাকা। 

অবশ্য ম্যাচের শুরুটা সিলেটের নাজমুল হোসেন কিংবা শামসুর রহমানদের নয়, ঢাকার পেসার শরীফুল ইসলামের। সিলেটের ওপেনার শামসুরকে ০ রানে ফেরানোর পর প্রথম স্পেলে আউট করেছেন নাজমুল ও জাকির হাসানকে। ছন্দ হারিয়ে খোঁজা নাজমুল আউট হন ১২ বলে ৩ রান করে। চলতি বিপিএলে সিলেটের হয়ে খেলা ৫ ম্যাচের ৪টিতেই ত্রিশোর্ধ্ব রানের ইনিংস খেলা ইনফর্ম জাকির আউট হন প্রথম বলে। শরীফুল প্রথম স্পেলে ৩ ওভার বল করে ৮ রান দিয়ে নিয়েছেন ৩ উইকেট। প্রথম স্পেলে শরীফুলকে সঙ্গ দিয়েছেন আরেক পেসার তাসকিন আহমেদ। তিনি প্রথম স্পেলে উইকেট না পেলেও ২ ওভার বল করে রান দিয়েছিলেন মাত্র ৪, চেপে ধরেছিলেন সিলেটের রানের টুটি। প্রথম ৬ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে ২৩ করা সিলেটের মান বাঁচান সামিত প্যাটেল ও অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুন, গড়েন ৪৯ বলে ৫৭ রানের জুটি। ৩২ বলে ৩২ রান করে সামিত আউট হলেও মিঠুন অর্ধশতক করেন। ইনিংসের শেষ ওভারে আউট হওয়ার আগে করেন ৪৬ বলে ৫৯ রান। শেষ দিকে অলরাউন্ডার আরিফুল ইসলাম ৯ বলে ২১ রান করলে পর্যাপ্ত সংগ্রহ পায় সিলেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

- Advertisement -
সিলেট স্ট্রাইকার্স: ২০ ওভারে ১৪২/৮( সামিত ৩২, মিঠুন ৫৯ ; শরীফুল ৪-০-২৪-৪, তাসকিন ৪-০-১৯-১ )

দুর্দান্ত ঢাকা: ২০ ওভারে ১২৭/৯ ( রস ২০, তাসকিন ২৭*, এনগারাভা ৪-০-৩০-৪, রেজাউর ৪–০–৪১–২ )

ফল: সিলেট ১৫ রানে জয়ী

ম্যাচসেরা: রিচার্ড এনগারাভা

Subscribe

Subscribe to our newsletter to get our newest articles instantly!

ফলো করুন

সোশ্যাল মিডিয়াতে আমাদের সাথে থাকুন
জনপ্রিয় খবর
মতামত দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *